বিজয় দিবস ক্রিকেটে জয়ী শহীদ জুয়েল একাদশ

প্রকাশের সময়: ৯:০৮ অপরাহ্ন - শনি, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৭

ex-match

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্ক : বিজয়ের ৪৬ বছর পার হয়ে গেলেও শহীদ আবদুল হালিম জুয়েল আর শহীদ মোস্তকরা হৃদয়ের বড় একটি অংশ দখল করে আছেন বাংলাদেশের ক্রিকেট অন্তঃপ্রাণ মানুষের। প্রতি বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও বিজয় দিবসে মিরপুরের শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সাবেক ক্রিকেটারদের নিয়ে আয়োজন করা হলো প্রীতি ম্যাচের। শহীদ জুয়েল এবং শহীদ মোস্তাক একাদশ নামে ভাগ হয়ে অংশগ্রহণ করেছেন সাবেক ক্রিকেটাররা।

এই ম্যাচে শহীদ মোস্তাতক একাদশকে ৪৬ রানে হারিয়েছে শহীদ জুয়েল একাদশ। শহীদ মোস্তাক একাদশের নেতৃত্বে ছিলেন আকরাম খান আর শহীদ জুয়েল একাদশের নেতৃত্বে ছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। টস জিতে শহীদ জুয়েল একাদশের অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুলকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান শহীদ মোস্তাক একাদশের অধিনায়ক আকরাম খান।

ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৩ রান করেই হাসিবুল হোসেন শান্তর বলে আউট হয়ে ফিরে যান মেহরাব হোসেন অপি। এরপর ওয়ান ডাউনে নামা এহসানুল হকে সেজানকেও দাঁড়াতে দিলেন না সাইফুল ইসলাম। তারেক আজিজের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাত্র ৩ রান করে আউট হয়ে যান সেজান। এরপরই অপর ওপেনার জাভেদ ওমর বেলিম গুল্লুকে সঙ্গে নিয়ে জুটি বাধেন এক সময়ের মাঠ কাঁপানো ওপেনার হান্নান সরকার। ২১ রানে ২ উইকেট পড়ার পর বাকি খেলাটা এই দু’জনই শেষ করে দেন।

১৫১ রানের জুটি গড়েন গুল্লু আর হান্নান সরকার। ৬১ বলে ৭১ রান করেন জাভেদ ওমর বেলিম। ৩৯ বলে ৮২ রান করেন হান্নান সরকার। তার ইনিংসে ছিল ১০টি বাউন্ডার এবং ৩টি ছক্কার মার। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রান সংগ্রহ করে শহীদ জুয়েল একাদশ।

জবাব দিতে নেমে দারুণ ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে শহীদ মোস্তাক একাদশ। আমিনুল ইসলাম বুলবুলের এবং জাভেদ ওমর বেলিমের অকেশনাল স্পিনেই মূলতঃ ধরা খায় আকরাম খানের দল। ৪ ওভারে ২৩ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন আমিনুল ইসলাম। ১ ওভার করে ১ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন জাভেদ ওমর। শহীদ মোস্তাক একাদশের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন অধিনায়ক আকরাম খান। ৩১ রান করেন ওপেনার হারুনুর রশীদ। এছাড়া আর কোনো ব্যাটসম্যান দাঁড়াতেই পারেনি। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৬ রান করতে সক্ষম হয় শহীদ মোস্তাক একাদশ। ম্যাচ সেরার পুরস্কার ওঠে হান্নান সরকারের হাতে।

উপরে