দ্বিতীয় টেস্টেও অস্ট্রেলিয়াকে হারানো সম্ভব : তাইজুল

প্রকাশের সময়: ১২:১৪ পূর্বাহ্ন - শুক্র, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৭

taizol up

স্পোর্টস লাইফ, ডেস্কসাকিব আল হাসানের ২-০ তে জয়ের আশা আরও জ্বলজ্বলে হয়ে উঠেছে ঢাকা টেস্টের পর। মুশফিকদের এখন লক্ষ্য অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্ট জয়। ২০ রানের জয়ে অস্ট্রেলিয়ার শেষ ব্যাটসম্যান জশ হ্যাজলউডকে ফেরানো তাইজুল ইসলাম মনে করছেন সেটা সম্ভব।

আগামী ৪ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। সেই লড়াইয়ের জন্য সব ধরনের ‘গোলাবারুদ’ মজুদ আছে বাংলাদেশের কাছে। সেটা নিয়ে ঝাপিয়ে পড়বে মুশফিকরা। বৃহস্পতিবার হোটেল রেডিসনে সংবাদমাধ্যমকে তাইজুলের প্রত্যয়ী কণ্ঠ বলেছে সেই কথা, ‘সাকিব-তামিম ভাইদের মতো আমিও একই কথা বলবো। আমরা ইংল্যান্ডকে টেস্টে হারিয়েছিলাম। ওদেরও কিন্তু ২-০ তে হারাতে পারতাম। অল্পের জন্য সুযোগটা হাতছাড়া হয়েছিল। তাই অস্ট্রেলিয়াকে হারানো যাবে না, এমন কোনও কথা বলবো না। এটা তো অসম্ভব কিছু না। আশা করি চট্টগ্রামেও আমরা সফলতা অব্যাহত রাখতে পারব।’

মিরপুরের মতো চট্টগ্রামেও একই উইকেট প্রত্যাশা করছেন দ্বিতীয় ইনিংসে সাকিবের সঙ্গে দারুণ বোলিং করা তাইজুল। শেষ ইনিংসে ৬০ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেওয়া এ বাঁহাতি স্পিনার বলেছেন, ‘এখানে (মিরপুর) যে উইকেটে ওদের হারিয়েছি, তেমনটাই আশা করছি চট্টগ্রামে। অবশ্য শুধু আশা করলে হবে না, তেমন উইকেট পাওয়ার পর তো আমাদের ভালোও খেলতে হবে। আমরা এরকম উইকেটই চাচ্ছি, যেন আমাদের জন্য ভালো হয়।’

২০১৪ সালের অক্টোবরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ছিল তাইজুলের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। ওই ম্যাচে তার বোলিংয়ে দিশেহারা হয়েছিল সফরকারীরা, ৮ উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং লাইনআপে ধস নামান। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়ের দিন সেভাবে জ্বলতে পারলেন না। দুই ইনিংসে পেয়েছেন ৪ উইকেট। তবে চতুর্থ দিন দ্বিতীয় সেশনে তার বোলিং ছিল দুর্দান্ত। তাই ম্যাচসেরা সাকিবের চেয়ে যে অবদান কম রেখেছেন সেটা বলা যায় না।

এ দুই ম্যাচের মধ্যে কোনটিকে এগিয়ে রাখবেন তাইজুল, জানতে চাইলে তার কৌশলী জবাব, ‘জিম্বাবুয়ে হয়তো ছোট দল। কিন্তু গত তিন-চার বছর ধরে আমাদের এগিয়ে চলাটা শুরু হয়েছিল ওই সিরিজ দিয়ে। ওদের সঙ্গে টেস্ট সিরিজ জিতে শুরু করলাম, পরে ওয়ানডে সিরিজও। এরপর বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশ কিন্তু ভালো একটা পর্যায়ে আছে। প্রতিটি জায়গাতেই সফল। আমি ওই পারফরম্যান্সকে ছোট করবো না, এটাকেও বড় করবো না। দুটোতেই আমি খুশি।’

হ্যাজলউডকে আউট করার কৌশল তাইজুল পেয়েছিলেন সাকিবের কাছ থেকে। সেই কৌশলটা কী ছিল জানালেন তিনি, ‘ওরা (হ্যাজলউড-কামিন্স) জুটি গড়ে ফেলছে এবং রান বের হয়ে যাচ্ছিল, তখন আমরা কোনটা করলে ভালো হয় সেই ব্যাপারে কথা বলছিলাম। তাদের চেপে ধরার কৌশল বুঝতে চেয়েছিলাম। আমি শেষ উইকেটের যখন চারটা বল ওভার দ্য উইকেটে করলাম, তখন সাকিব ভাই এসে রাউন্ড দ্য উইকেটে  বল করতে বললেন। তারপর করলাম, তখনই সফল হলাম।’

উপরে